শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
আজ শুক্রবার | ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

সাফল্য ব্রিটেনে

ব্লাক বক্স ব্যাবহার করোনা চিকিৎসায় নব দিগন্ত

মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০ | ৯:১৪ এএম | 313 বার

ব্লাক বক্স ব্যাবহার করোনা চিকিৎসায় নব দিগন্ত

লন্ডন: ব্ল্যাক বক্সের মাধ্যমে ফুসফুসে প্রদাহ হওয়া করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় নতুন এক মাইলফলক বলে জানিয়েছেন বৃটেনের চিকিৎসকরা। এর মাধ্যমে তারা মৃত্যুর হার অনেকাংশে কমাতে সক্ষম হয়েছেন এবং চিকিৎসকরা বলেছেন, ভেন্টিলেটরের চেয়ে ব্লাক বক্স ডিভাইসের মাধ্যমে রোগীর উন্নতি সাধনের সংখ্যা যেমন বেশি তেমনি সক্ষম হচ্ছে দ্রুত আরোগ্য লাভেরও ।

নাম শুনে অনেকেই মনে করতে পারেন, এটি উড়োজাহাজের ব্লাক বক্স। আসলে এটা তা নয়। ইংরেজিতে এ যন্ত্রটি কে বলা হয় CPAP (Continuous Positive Airway Pressure) ।

এতদিন চিকিৎসকরা এই ব্ল্যাকবক্স ব্যবহার করতেন ঘুমের সমস্যা বা ঘুমের রোগের ক্ষেত্রে। যাদের স্লিপ এপনোইয়া – ঘুমের মধ্যে শ্বাস প্রশ্বাস বন্ধ এবং শুরু হতো সেসব রোগীদের জন্য কার্যকরী ব্যবহার ছিল এ ব্লাক বক্সের। তবে করোনা চিকিৎসায় এ ব্লাক বক্সকে কিছুটা পরিবর্তন করে অর্থাৎ উপযোগী করে চিকিৎসকরা ব্রিটেনে ব্যবহার করছেন।

বৃটেনের ওয়ারিংটন হাসপাতালের চিকিৎসকরা এ নতুন তথ্য উপস্থাপন করেছে সাংবাদিকদের। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়েছে এরকম ৫ জন রোগীর সাথে সাংবাদিকরা কথাও বলেছেন । এখন পর্যন্ত প্রায় ১০০ জন রোগী ভালো হয়েছে এ পদ্ধতিতে।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের সাতজন চিকিৎসক দল ও রেসপিরেটরি বিশেষজ্ঞ উপলব্ধি করতে পেরেছেন যে, ভেন্টিলেটরের মাধ্যমে শ্বাসপ্রশ্বাসের ক্রিয়া সচল রাখা একটু জটিল প্রক্রিয়া কারণ এখানে রোগীকে অবচেতন করে ভেন্টিলেটরের পাইপ গলার নিচে দিয়ে ঢুকাতে হয় অপারেশন করে এবং তাতে আবার বাঁচানোর সম্ভাবনাও মাত্র ৫০ শতাংশ। তখনই তারা ভাবতে শুরু করেন আরও কার্যকরী চিকিৎসা পদ্ধতির।

তখনই তাদের খেয়াল হলো, ব্লাকবক্স রোগীকে অচেতন না করেই প্রতিনিয়ত প্রসারে শুধুমাত্র একটি ফেস মাস্ক এর মাধ্যমে নিয়মিত অক্সিজেন সরবরাহ করা যায়, যারা নিজেরাই শ্বাস-প্রশ্বাস চালাতে পারেন এবং এই যন্ত্রটি ফুসফুসকে সচল রাখতে পারে এবং ফুসফুসের কার্যক্রম বন্ধ হতে বাধা দেয়। তারা লক্ষ্য করে দেখেছেন যে, এই যন্ত্রের মাধ্যমে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ১৫ মিনিটের মধ্যেই রোগীর উন্নতি সাধন হয়েছে।

উল্লেখ্য, তাদের পুরো হাসপাতালে মাত্র ৬ টি এ ধরনের যন্ত্র রয়েছে।

তবে, ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের চিকিৎসকরা এই যন্ত্রটিকে আরো অত্যাধুনিক কাজ করেছেন এবং ইতিমধ্যে ১০ হাজার যন্ত্র বৃটেনের বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহ করা হচ্ছে।


সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  
ফেইসবুক পাতা